,


ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর

ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর – দর্শনীয় স্থান

আমাদের আজকের প্রতিবেদনটি ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালা কে ঘিরে। শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর কোথায় অবস্থিত, ইতিহাস, কাঠামো, কেন যাবেন, কিভাবে যাবেন, কোথায় থাকবেন এই সকল বিষয় নিয়ে আমাদের প্রতিবেদন টি সাজানো হয়েছে। আশা করি, প্রতিবেদনটি পড়ে আপনারা উপকৃত হবেন।

ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালা বাংলাদেশের ভাষা আন্দোলনের প্রকৃত ইতিহাস সংরক্ষণের একটি জাদুঘর ও সংগ্রহশালা।বায়ান্ন সালের ভাষা আন্দোলনের আত্মোৎসর্গকারী এসব মহৎ প্রাণদেরকে আগামী প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে এবং ভাষা আন্দোলনের প্রকৃত ইতিহাস সংরক্ষণে রাখতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের পাশে শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালা হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

এটি ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের বিভিন্ন ঘটনা প্রবাহের আলোকচিত্র, প্রিয়জনকে লেখা চিঠি, ভাষা শহীদদের ছবি সহ নানান ঐতিহাসিক জিনিস নিয়ে সাজানো।

নামকরণ

ভাষাসৈনিক ও সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা বিচারপতি হাবিবুর রহমান ২০১২ সালের ১২ মার্চ জহুরুল হক হলের ভেতরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রাক্তন ছাত্র শহীদ আবুল বরকত নামে এই স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালাটি উদ্বোধন করেন।

অবস্থান

ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালাটি বাংলাদেশের ঢাকা জেলার পলাশীতে জহুরুল হক হলের ভেতরে অবস্থিত।

  • জেলাঃ ঢাকা
  • উপজেলাঃ শাহবাগ

ইতিহাস

১৯২৮ সালে জন্ম নেয়া বরকত ১৯৪৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর রাষ্ট্রবিজ্ঞানে ভর্তি হয়। ১৯৫১ সালে তিনি স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৫২ সালের একশে ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানি পুলিশের গুলিতে তিনি শহীদ হন।

আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর পলাশীর মোড়ে জহুরুল হক হলে অবস্থিত। হলের পেছনের প্রবেশদ্বার দিয়ে ঢুকে হাতের বাম দিকে জাদুঘরটি পাওয়া যাবে।

কাঠামো ও সংগ্রহ

স্মৃতিফলক পার হয়ে ভেতরে ঢোকার পরে দেয়ালে বিশাল ক্যানভাসে আঁকা ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস, ‘রাষ্ট্রভাষা বাংলা চাই’ দাবিতে ছাত্রদের মিছিল। মিছিলে সরকারি বাহিনীর গুলিবর্ষণ। গুলিতে শহীদ ও তাদের স্মরণে প্রথম শহীদ মিনার এবং তারপর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, শ্রদ্ধাঞ্জলি ও প্রভাতফেরি।

ডান পাশে নিদর্শন ও আলোকচিত্র। নিদর্শনের মধ্যে রয়েছে ভাষাশহীদ আবুল বরকতের ব্যবহৃত একটি খেলনা, তিনটি কাপ-পিরিচ, বাবাকে লেখা বরকতের তিনটি চিঠি, বরকতের ডিগ্রির সনদ।

সংগ্রহশালায় রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চের ছাত্র আন্দোলন থেকে শুরু করে ১৯৫২ সালের আন্দোলন, ২১ ফেব্রুয়ারি বরকতের কবরে তার বাবা-মায়ের শ্রদ্ধাঞ্জলি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের প্রভাতফেরি, মাওলানা ভাসানী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রভাতফেরির ছবি, একুশের গানসহ নানা ঘটনার আলোকচিত্র রয়েছে।

কেন যাবেন?

ভ্রমন পিপাসু মানুষ দের কে যদি এই কথা জিজ্ঞাসা করা হয়, তবে তারা এই কথা অহেতু হাসির ছলে উড়িয়ে দিবে । কারন, ভ্রমন পিপাসু মানুষদের কাছে এই কথা মূল্যহীন। তবুও বলি,

  • জাদুঘরে বরকতের ব্যক্তিগত ছবি, চিঠি, ব্যবহৃত জিনিসপত্র, মরণোত্তর একুশে পদক, বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদ ছাড়াও ভাষা আন্দোলনের নানা সংগ্রহ আছে।
  • দ্বিতীয় তলায় একটি পাঠাগার আছে যেখানে মুক্তিযুদ্ধ ও ভাষা আন্দোলনের ওপর বাংলাদেশে প্রকাশিত দলিল ও বইপত্র রক্ষিত আছে।

শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালা অত্যন্ত মনোরম, যা আপনাকে ভাষা আন্দোলনের প্রকৃত ইতিহাস জানতে সাহায্য করবে।

টিকেট মূল্য

বিনামূল্যে আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করতে পারবেন।

পরিদর্শনের সময়

ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালা পরিদর্শন করার জন্য দর্শনার্থীদের নিম্নে প্রদত্ত সময়ের মধ্যে আসতে হবে। তাই ছক দেখে সময় জেনে নিনঃ

বার সময়সূচী
রবিবার থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা – বিকেল ৪টা

কীভাবে যাবেন ?

শাহবাগ, গুলিস্থান এবং নিউমার্কেট থেকে রিক্সা অথবা সিএনজি নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের পশ্চিম পাশে অবস্থিত শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘরে যাওয়া যায়।

কোথায় খাবেন?

শাহবাগ, গুলিস্থান এবং নিউমার্কেট এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আশে পাশে অগণিত হোটেল রয়েছে।

কোথায় থাকবেন?

রাজধানীর প্রায় প্রতিটি এলাকাতেই কম বেশি আবাসিক হোটেল রয়েছে। এখানে ৫ তারকা মানের হোটেল থেকে শুরু করে সাধারণ মানের হোটেলও পাবেন। ৫ তারকা হোটের মধ্যে প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁ, হোটেল লা মেরিডিয়েন, র‍্যাডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। এছাড়া বঙ্গবন্ধু এভিনিউ, ফকিরাপুল, পল্টন, গুলিস্তান এবং পুরান ঢাকাতে কম খরচে থাকার অসংখ্য আবাসিক হোটেল রয়েছে।

ম্যাপ

ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালা গুগুল ম্যাপে যুক্ত করা হয়েছে। যা দেখে আপনি সহজেই আপনার পথ খুজে পাবেন।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: