,


ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনের সময়সূচী ও টিকিটের মূল্য

ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনের সময়সূচী ও টিকিটের মূল্য

প্রতিবেদনটি ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া ট্রেনের নতুন সময়সূচী ও টিকিটের মূল্য সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য নিয়ে সাজানো। আপনি যদি ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনে ভ্রমণ করতে চান তবে এই প্রতিবেদনটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রুট সম্পর্কে

ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পথের দূরত্ব প্রায় ১০৮ কিলোমিটার। এই রুটে ৬ টি আন্তঃনগর ও ১ টি কমিউটার ট্রেন যাতায়াত করে। ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনে যেতে প্রায় ৩ ঘন্টা সময় লাগে।

ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া কেন ভ্রমন করবেন? 

ট্রেনে ভ্রমণ ব্যয় অন্য পরিবহণের ভ্রমণ ব্যয়ের তুলনায় সস্তা। ফলে সকল শ্রেণীর মানুষ অনায়াসে ট্রেনে ভ্রমণ করতে পারেন। অপরদিকে দীর্ঘ পথ অতিক্রম করার জন্য ট্রেনে অনেক ধরণের সুবিধা থাকে। যা অন্য কোন পরিবহণে থাকে না। অনেকের কাছে স্থল পথে যাত্রার জন্য সেরা পরিবহণ ট্রেন। তাই বলা যায়, ১০৮ কিমি দীর্ঘ ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রুটে ট্রেন ভ্রমণই সেরা।তাছাড়া প্রতিদিন হাজার হাজার ভ্রমণকারী ট্রেনে করে ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া যাতায়াত করে থাকেন ।

ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনের নতুন সময়সূচী

ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সাধারণত আন্তনগর ও কমিউটার ট্রেন যাত্রা করে থাকে।

ট্রেনের ধরন ট্রেনের নাম  ট্রেন নাম্বার  থেকে প্রস্থানের সময়  পর্যন্ত  আগমন সময় বন্ধ
ইন্টারসিটি পারাবত এক্সপ্রেস ৭০৯ ঢাকা ০৬:২০ ব্রাহ্মণবাড়িয়া ০৯:১০
ইন্টারসিটি মহানগর প্রভাতী ৭০৪ ঢাকা ০৭:৪৫ ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১০ঃ৩৫
ইন্টারসিটি জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ৭১৭ ঢাকা ১১ঃ১৫ ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১৪:০৫
ইন্টারসিটি চিত্রলতা এক্সপ্রেস ৮০২ ঢাকা ১৩:০০ ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১৫:৫০
ইন্টারসিটি উপকূল এক্সপ্রেস ৭১২ ঢাকা ১৫:২০ ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১৮:১০
ইন্টারসিটি মহানগর এক্সপ্রেস ৭২২ ঢাকা ২১:২০ ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৪:১৫
ইন্টারসিটি তূর্ণা ৭৪২ ঢাকা ২৩:৩০ ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২:৩০
মেইল তিতাস কমিউটার ৩৪ ঢাকা ০৯:৪৫ ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১২:২৫

পারাবত এক্সপ্রেস

পারাবত এক্সপ্রেস হলো একটি আন্তঃনগর ট্রেন। আন্তঃনগর ট্রেন গুলি সাধারনত মেইল ট্রেনের থেকে দ্রুতগতি সম্পন্ন হয়ে থাকে। পারাবত এক্সপ্রেস ট্রেন নাম্বার হলো ৭০৯। পারাবত এক্সপ্রেস ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাত্রা করে থাকে।

মহানগর প্রভাতী

মহানগর প্রভাতী হলো একটি আন্তঃনগর ট্রেন। আন্তঃনগর ট্রেন গুলি সাধারনত মেইল ট্রেনের থেকে দ্রুতগতি সম্পন্ন হয়ে থাকে। মহানগর প্রভাতী ট্রেন নাম্বার হলো ৭০৪। মহানগর প্রভাতী ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাত্রা করে থাকে।

জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস

জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস হলো একটি আন্তঃনগর ট্রেন। আন্তঃনগর ট্রেন গুলি সাধারনত মেইল ট্রেনের থেকে দ্রুতগতি সম্পন্ন হয়ে থাকে। জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ট্রেন নাম্বার হলো ৭১৭। জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাত্রা করে থাকে।

চিত্রলতা এক্সপ্রেস

চিত্রলতা এক্সপ্রেস হলো একটি আন্তঃনগর ট্রেন। আন্তঃনগর ট্রেন গুলি সাধারনত মেইল ট্রেনের থেকে দ্রুতগতি সম্পন্ন হয়ে থাকে। চিত্রলতা এক্সপ্রেস ট্রেন নাম্বার হলো ৮০২। চিত্রলতা এক্সপ্রেস ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাত্রা করে থাকে।

উপকূল এক্সপ্রেস

উপকূল এক্সপ্রেস হলো একটি আন্তঃনগর ট্রেন। আন্তঃনগর ট্রেন গুলি সাধারনত মেইল ট্রেনের থেকে দ্রুতগতি সম্পন্ন হয়ে থাকে। উপকূল এক্সপ্রেস ট্রেন নাম্বার হলো ৭১২। উপকূল এক্সপ্রেস ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাত্রা করে থাকে।

মহানগর এক্সপ্রেস

মহানগর এক্সপ্রেস হলো একটি আন্তঃনগর ট্রেন। আন্তঃনগর ট্রেন গুলি সাধারনত মেইল ট্রেনের থেকে দ্রুতগতি সম্পন্ন হয়ে থাকে। মহানগর এক্সপ্রেস ট্রেন নাম্বার হলো ৭২২। মহানগর এক্সপ্রেস ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাত্রা করে থাকে।

তিতাস কমিউটার

তিতাস কমিউটার হলো এক ধরনের মেইল ট্রেন। মেইল ট্রেন গুলি সাধারনত ইন্টারসিটি ট্রেন এর থেকে ধীর গতি সম্পূর্ণ হয়ে থাকে। তিতাস কমিউটার ট্রেন নাম্বার হলো ৩৪। তিতাস কমিউটার সপ্তাহের প্রতি দিন ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাত্রা করে থাকে।

ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রেনের টিকিটের মূল্য

ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া যাতায়াতকারী ইন্টারসিটি ট্রেনের টিকিটের মূল্য মাত্র ১২০ টাকা (শোভনের জন্য)। নিচের চার্ট থেকে ট্রেনের টিকিটের মূল্য জেনে নিন। এবার সহজে ষ্টেশন থেকে অথবা অনলাইনে টিকিট ক্রয় করুন। একইসাথে কিভাবে অনলাইনে ট্রেনের টিকিট ক্রয় করতে হয় সেই সম্পর্কে জানতে প্রতিবেদনটি শেষ পর্যন্ত পড়ুন।

সিটের ধরন টিকিট মূল্য (প্রাপ্ত বয়স্ক)
শোভন ১২০ টাকা
শোভন চেয়ার ১৪৫ টাকা
স্নিগ্ধা ২৪০ টাকা
ফাস্ট ক্লাস চেয়ার ১৯০ টাকা
এসি চেয়ার ২৮৫ টাকা

ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া ট্রেনের টিকিট ক্রয়

ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া যাত্রীগণ অনলাইনের মাধমে ট্রেনের টিকিট ক্রয় করতে পারেন। আবার ঢাকা ষ্টেশনে গিয়ে সেখান থেকে সরাসরি টিকিট ক্রয় করতে পারবেন। নিচে ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া ট্রেনের টিকিট ক্রয়ের পদ্ধতি দুটি আলোচনা করা হলো।

ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া অনলাইন টিকিট বুকিং

ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া ট্রেনের অনলাইন টিকিট বুকিং করার জন্য আপনাকে বাংলাদেশ রেলওয়ে এর ওয়েব সাইটি ভিজিট করতে হবে ।

ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া ট্রেনের অনলাইন টিকিট কেনা সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য 

  • যাত্রী (আপনি) যাত্রার ১০ দিন আগে টিকিট কিনতে পারবেন ।
  • ক্রেডিট এবং ডেবিট কার্ড, ডিবিবিএল মোবাইল ব্যাংকিং, বিকাশ এর মাধ্যমে পেমেন্ট করতে পারবেন ।
  • বাংলাদেশ ট্রেনের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটটি eticket.railway.gov.bd
  • ই-টিকিট প্রিন্টের তথ্য দেখিয়ে যে কোনও সময় ট্রেনের টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন ।
  • ভ্রমণের কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে টিকিট সংগ্রহ করার পরামর্শ আপনাদের জন্য ।
  • আপনি অনলাইন সিট নিজের মত করে পছন্দ করতে পারবেন।

ঢাকা ট্রেন স্টেশন থেকে টিকিট ক্রয়

  • টিকিট ক্রয় করার ১/২ দিন পূর্বে অথবা সর্বোচ্চ ১০ দিন পূর্বে ঢাকা ট্রেন স্টেশন থেকে টিকিট ক্রয় করতে পারবেন ।
  • টিকিট ক্রয় করার জন্য স্টেশনের টিকিট কাউন্টার থেকে টিকিট সংগ্রহ করতে হবে ।
  • সাবধানতার সাথে টিকিট টি রাখতে হবে।

ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া ট্রেন যাত্রায় মন্তব্য

আপনি এখন ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া ট্রেনের নতুন সময়সূচী ও টিকিটের মূল্য তালিকা সম্পর্কে জেনে, ঢাকা থেকে বি. বাডীয়া মেইল দিয়ে যাতায়াত করতে পারবেন। আপনার যদি কোনও প্রশ্ন থাকে তবে একটি কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন। আশা করি, এই নিবন্ধটি আপনার জন্য সহায়ক ছিল। ধন্যবাদ ।

ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া সকল ট্রেনের সময়সূচী জানতে ক্লিক করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।


এই বিভাগের আরও