স্ত্রীকে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন

ডেস্ক রিপোর্টারঃ জামালপুরের মাদারগঞ্জে যৌতুকের মামলা করায় স্ত্রীকে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। মাদারগঞ্জ পৌরসভার বালিজুড়ি পশ্চিমপাড়া গ্রামে এই নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে নির্যাতনের শিকার ইয়াসমীন আক্তারের স্বামী-শ্বশুরসহ ৪ জনকে আটক করে পুলিশ।

মাদারগঞ্জ পৌরসভার চরবওলা গ্রামের কৃষক দুদু প্রামানিকের মেয়ে ইয়াসমীন আক্তারের সাথে ৫ বছর আগে বিয়ে হয় পৌর এলাকার বালিজুড়ি পশ্চিমপাড়া গ্রামের টগর ফকিরের ছেলে মাজেম ফকিরের সাথে। তাদের ঘরে ৪ বছর বয়সের কন্যা সন্তান আছে। হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী মাজেম সম্প্রতি তার শ্বশুরের কাছে ৩ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। যৌতুক না পেয়ে ইয়াসমীনকে মারধর করে বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। এক সপ্তাহ আগে আদালতে স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুকের মামলা করে ইয়াসমীন।

মঙ্গলবার সকালে ইয়াসমীনকে বাড়িতে ডেকে নেয় স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন। বাড়িতে ডেকে নিয়ে সুপারি গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন করে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন। পরে স্থানীয় লোকজন ইয়াসমীনকে উদ্ধার করে মাদারগঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করে। গাছে বেঁধে নির্যাতনের ভিডিও বুধবার রাতে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ বৃহস্পতিবার নির্যাতনকারী স্বামী মাজেম ফকির, শ্বশুর টগর ফকির, ভাসুর শাহজাহান ও ভাসুরের স্ত্রী ছানোয়ারা বেগমকে আটক করে।
এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার ইয়াসমীন বাদী হয়ে স্বামী-শ্বশুরসহ চার জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে।

মাদারগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম জানান, নির্যাতনের ঘটনায় ৪ জনকে আটক করা হয়েছে। নির্যাতিতা নিজে বাদী হয়ে থানায় একটি নির্যাতন মামলা দায়ের করেছেন।