,


সাপাহারে শিশু পাচারকারী সন্দেহে এক যুবক আটক

সাপাহারে শিশু পাচারকারী সন্দেহে এক যুবক আটক

সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ নওগাঁর সাপাহারে শিশু পাচারকারী সন্দেহে সোহাগ(২২)নামের এক যুবককে জনগণ আটক করে পুলিশে দিয়েছে।

জানাগেছে, শনিবার বেলা ৩ ঘটিকার সময় উপজেলার তিলনা ইউনিয়নের বাবুপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেণির শিক্ষার্থী, চন্দুরা গ্রামের স্বপন এর ছেলে মোহাম্মদ বিপ্লব(৭),রুবেল এর ছেলে ফহিম(৬),রাব্বানীর ছেলে মাসুম(৬),রফিকুলের ছেলে আব্দুল্লাহ্(৭) বাড়ির সামনে তার সহপাঠীদের সঙ্গে গ্রামে রাস্তার পাশে খেলা করার সময় এক অপরিচিত যুবক পানিখাকা নামক স্থান চিনিয়ে দেওয়ার কথা ও বিস্কুট খাওয়াবে বলে ফুসলিয়ে গ্রাম থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার দূরে পানিখাকা পুকুরের কাছে নিয়ে যায়,সাথে থাকা চার শিশুর মধ্যে তিন জনকে ৫০ টাকার একটি নোট ধরিয়ে দিয়ে বলে তোমরা যাও গিয়ে ১০ টাকা দামের ৪ টা বিস্কুটের প্যাটেক নিয়ে এসো এরই মধ্যে সে যুবক ফোন দিয়ে কোথায় যেন কথা বলে,মোক্কেল পাওয়া গেছে,তখন সাথে থাকা ওই শিশু প্রশ্ন করে মোয়াক্কেল কি তখন যুবকটি বলে যাকে ফোন করলাম তার নাম মোয়াক্কেল, এবং ৩ শিশু বিস্কুট নিতে গেলে দোকানদারের মনে প্রশ্ন ওঠে তখন শিশুদের প্রশ্ন করে তোমরা টাকা কোথায় পেলে জানতে চাইলে তারা সে ঘটনা খুলে বললে ঘটনাস্থলে থাকা শিশুটির মা তড়িৎগতিতে পানিখাকা নামন স্থানে পৌছার মাত্র, যুবকটি দৌড়িয়ে পালিয়ে যায়।এবং জানা যায় যুবকটির বাড়ি পাশ্ববর্তী গ্রাম দমদমায় তখন সন্ধ্যায় গ্রামের লোকজন সেই যুবকের বাড়িতে গিয়ে অভিযুক্ত সোহাগ হোসেনকে প্রশ্ন করলে সে বলেন আমি তাদের ওখানে নিয়ে গেছি আম খাব বলে। এবং বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কথা বলছে,অভিযুক্ত ছেলের এরুপ আচরণ সন্দেহজনক মনে হলে, এলাকাবাসী তাকে আটক করে।

তার বাবা ঘটনার বিবরণ শুনে বলে তোমরা যা করার কর আমার কোন কিছু করার নেই তখন গ্রামের মেম্বার রইচ উদ্দীন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহজাহান হোসেন কে ফোন করে বললে চেয়ারম্যান মেম্বারের জিম্মায় নিতে বলে এবং পরদিন সকালে চেয়ারম্যানের বাড়িতে অভিযুক্ত যুবককে নিয়ে আসলে চেয়ারম্যান বলে এটা আমার বিচারের কাজ নয় এটা আইন দেখবে তখন চেয়ারম্যান থানায় ফোন করে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেন। অভিযুক্ত যুবক দমদমা গ্রামের আইনালের ছেলে।

এ বিষয়ে শিশুদের অভিভাবক স্বপণ, রুবেল অপরাধীর উপযুক্ত শাস্তি দাবি জানান।তবে এলাকাবাসী বলেন এই যুবক অনেক অপরাধের সাথে জড়িত আছে কিছুদিন আগে ছাগল চুরি ও মাদক সেবনের দায়ে জেলে ছিল।

সাপাহার থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি শামসুল আলম শাহ্ বলেন, এরকম অভিযোগের ঘটনায় এলাবাসি ওই যুবককে থানায় দিয়েছে এবং এবিষয়ে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: