,


রোহিত-রাহুলের ব্যাটে ভারতের উড়ন্ত সূচনা

রোহিত-রাহুলের ব্যাটে ভারতের উড়ন্ত সূচনা

বাংলাদেশের বিপক্ষে টস জিতে ব্যাটিং করছে ভারত।

হাফসেঞ্চুরি পেলেন রাহুলও

রোহিত শর্মার পর হাফসেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন লোকেশ রাহুলও। শুরু থেকেই সাবলীল ব্যাট করা এ ব্যাটসম্যান হাফ সেঞ্চুরি পেরিয়েছেন ৫৭ বলে। তাতে ছিল ৫টি চার ও ১টি ছক্কার মার। এ দুই ব্যাটসম্যানের ব্যাটে ওপেনিং জুটিতেই বড় সংগ্রহের পথে ছুটছে ভারত।

২১ ওভার শেষে ভারতের সংগ্রহ বিনা উইকেটে ১২৬ রান। রোহিত ৬৪ ও রাহুল ৫৮ রানে ব্যাট করছেন।

ভারতের দলীয় শতক

দুই ওপেনার রোহিত শর্মা ও লোকেশ রাহুলের ব্যাটে উড়ন্ত সূচনাই পেয়েছে ভারত। টাইগার বোলারদের ভুগিয়ে সাবলীল ব্যাট করে চলেছেন তারা। এর মধ্যেই তুলে নিয়েছেন দলীয় সেঞ্চুরি। চলতি বিশ্বকাপে ভারতের ওপেনিং জুটিতে এটা চতুর্থ শতরনের জুটি। ১৭.২ ওভারে (১০৫ বল) এসেছে দলের শতরান। প্রথম পঞ্চাশ রান এসেছিল ৫০ বলে।

১৮ ওভার শেষে ভারতের সংগ্রহ বিনা উইকেটে ১০৫ রান। রোহিত ৫৭ ও রাহুল ৪৪ রানে ব্যাট করছেন।

রোহিতের হাফসেঞ্চুরি

ফিরে যেতে পারতেন ব্যক্তিগত ৯ রানে। কিন্তু সহজ ক্যাচ তুলে দিয়েও জীবন পেয়েছেন তামিম ইকবালের ভুলে। আর তার ভোগান্তিটা বেশ ভালো ভাবেই পোহাচ্ছে বাংলাদেশ। এর মধ্যেই হাফসেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন এ ব্যাটসম্যান। ৪৫ বলে ৪টি চার ও ৩টি ছক্কায় নিজের ফিফটি স্পর্শ করেন তিনি। এর আগেও তিনটি ম্যাচে জীবন পেয়েছেন তিনি। তার দুটিতেই করেছেন সেঞ্চুরি। অপরটিতে হাফসেঞ্চুরি।

১৬ ওভার শেষে ভারতের সংগ্রহ বিনা উইকেটে ৯৭ রান। রোহিত ৫২ ও রাহুল ৪১ রানে ব্যাট করছেন।

ভারতের দলীয় হাফসেঞ্চুরি

শুরুতে রোহিত শর্মাকে জীবন দেওয়াটা বেশ ভারি পড়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের। এর মধ্যেই হাত খুলে খেলতে শুরু করেছেন তিনি। তার সঙ্গে যোগ দিয়েছেন আরেক ওপেনার লোকেশ রাহুলও। তাতে ৮.১ ওভারে (৫০ বলে) এসেছে দলীয় হাফসেঞ্চুরি। পাওয়ার প্লেটাও কাটিয়ে দিয়েছে দারুণ। কোন উইকেট না হারিয়ে তুলেছে ৬৯ রান।

১০ ওভার শেষে ভারতের সংগ্রহ বিনা উইকেটে ৬৯ রান। রোহিত ৩৮ ও রাহুল ২৮ রানে ব্যাট করছেন।

রোহিতকে জীবন দিলেন তামিম

আসর জুড়েই দুর্দান্ত ছন্দে আছেন রোহিত শর্মা। করেছেন তিন তিনটি সেঞ্চুরি। সেই ব্যাটসম্যানকে সহজ জীবন দিয়েছেন তামিম ইকবাল। মোস্তাফিজুর রহমানের বলে মিড উইকেটে তার সহজ ক্যাচ ছেড়েছেন তিনি। জীবন পেয়েই চড়াও হয়েছেন। জীবন পাওয়ার সময় ভারতের দলীয় রান ছিল ২১ এবং রোহিতের ৯।

এখন দেখার বিষয় বাংলাদেশকে কতটা ভোগান তিনি। চলতি আসরে এর আগে তিনটি ম্যাচে জীবন পেয়েছিলেন তিনি। সে তিন ম্যাচের ২টিতে করেছেন সেঞ্চুরি, অপরটিতে হাফসেঞ্চুরি।

মাশরাফি বিন মুর্তজার করা প্রথম ওভারে বেশ আগ্রাসী ভাব দেখিয়েছিলেন রোহিত। এক ছক্কায় সে ওভারে রান আসে ১০। তবে পরের ওভার থেকেই আবার দেখে শুনে খেলেছেন দুই ওপেনারই। কিন্তু তাদের চাপে ফেলে দেওয়ার সহজ সুযোগটি কাজে লাগাতে পারলো না টাইগাররা। জীবন পাওয়ার পর হাত খুলে খেলছেন রোহিত।

৭ ওভার শেষে ভারতের সংগ্রহ বিনা উইকেটে ৩৬ রান। রোহিত ২৩ ও লোকেশ রাহুল ১১ রানে ব্যাট করছেন।

দুটি পরিবর্তন ভারতীয় একাদশেও

বাংলাদেশের বিপক্ষে পূর্বের সাফল্যের জেনেই দিনেশ কার্তিককে একাদশে ঢুকিয়েছে ভারত। অফফর্মের কারণে বাদ পড়েছেন কেদার যাদব। এছাড়াও চোট কাটিয়ে ফিরেছেন ভুবনেশ্বর কুমার। তবে পেসার কমায়নি দলটি, চায়নাম্যান কুলদিপ জাদবের জায়গায় একাদশে ঢুকেছেন তিনি। বাংলাদেশের মতো চার পেসার নিয়েই মাঠে নেমেছে তারা।

ভারত একাদশ: রোহিত শর্মা, লোকেশ রাহুল, বিরাট কোহলি, রিশাব পান্ত, মহেন্দ্র সিং ধোনি, দিনেশ কার্তিক, হার্দিক পান্ডিয়া, ভুবনেশ্বর কুমার, যুজবেন্দ্র চাহাল, মোহাম্মদ শামি ও জাসপ্রিত বুমরাহ।

নেই মাহমুদউল্লাহ, বাংলাদেশের একাদশে দুই পরিবর্তন

আফগানিস্তানের বিপক্ষে চোট পেয়েছিলেন দলের অন্যতম সেরা ও অভিজ্ঞ খেলোয়াড় মাহমুদউল্লাহ। চোট কাটিয়ে আগের দিনই অনুশীলনে যোগ দিলেও শেষ পর্যন্ত ফিট হতে পারেননি তিনি। তার জায়গায় সুযোগ পেয়েছেন সাব্বির রহমান। এছাড়া এছাড়া স্পিনে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের সামর্থ্যের কথা ভেবে একজন বাড়তি পেসার নেওয়ার চিন্তা একাদশে ফিরিয়েছে রুবেল হোসেনকে। সে কারণে দল থেকে বাদ পড়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। চার পেসার নিয়ে খেলছে দলটি।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, লিটন কুমার দাস, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মাশরাফি বিন মর্তুজা, রুবেল হোসেন ও মোস্তাফিজুর রহমান।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে ভারত

এজবাস্টনে বাঁচা-মরার লড়াইয়ে ভারতের মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ। ‘মাস্ট উইন’ এ ম্যাচে শুরুটা ভালো হয়নি বাংলাদেশের। টস হেরে গিয়েছেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি টস জিতে বেছে নিয়েছেন ব্যাটিং। অর্থাৎ আগে ফিল্ডিং করতে হবে টাইগারদের। বাংলাদেশ সময় ম্যাচটি শুরু হবে বেলা সাড়ে ৩টায়।

বাঁচা-মরার লড়াইয়ে মাশরাফিরা

জিতলে বেঁচে থাকবে আশা। হারলে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলার স্বপ্ন কেবল স্বপ্নই থেকে যাবে। সমীকরণটা তাই একেবারে সরল মাশরাফি বিন মর্তুজার দলের জন্য- ভারতকে হারাতে হবে। বিশ্বমঞ্চে যে কাজটা আগেও করে দেখিয়েছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। ২০০৭ আসরে বিশ্বকাপে দু’দলের প্রথম দেখায় স্মরণীয় জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ।

বিশ্বকাপের লিগ পর্বের পয়েন্ট তালিকার দুই নম্বরে রয়েছে ভারত। বিরাট কোহলিদের অর্জন ৭ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট। এ ম্যাচে বাংলাদেশকে হারাতে পারলেই তারা নিশ্চিত করবে সেমিফাইনাল। অন্যদিকে, বাংলাদেশ সমান ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে পয়েন্ট তালিকার সাতে। এ ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে জেতার বিকল্প নেই টাইগারদের। হারলেই বেজে যাবে বিদায় ঘণ্টা।

সমীকরণটা বেশ কঠিন। ভারতকে তো হারাতে হবেই, সঙ্গে হারাতে পাকিস্তানকে। পাশাপাশি কামনা করতে হবে ইংল্যান্ডের হারেরও। এমন পরিস্থিতিতে দাঁড়ানোর আরেকটা সুবিধা দেখছেন মাশরাফি, ‘আমি এটা ইতিবাচক হিসেবে নিচ্ছি, যদি কাল খেলে জিততে পারি। আমি প্রেফার করি কঠিন অপশনই বেটার, শুধু বিশ্বকাপ না দলকে সামনের দিকে এগিয়ে এটাই ভালো।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: