,


রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী ভ্রমন

আমাদের আজকের প্রতিবেদনটি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী কে ঘিরে।রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী কোথায় অবস্থিত, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ীর ইতিহাস, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ীর কাঠামো, কেন যাবেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ীতে, কিভাবে যাবেন, কোথায় থাকবেন এ নিয়ে আমাদের প্রতিবেদন টি সাজানো হয়েছে। আশা করি, আমাদের মূল্যবান প্রতিবেদনটি পড়ে আপনারা উপকৃত হবেন।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী কোথায়?

খুলনা বিভাগের কুষ্টিয়া জেলার আন্তরভুক্ত কুষ্টিয়া সদরে চিত্রা রিসোর্ট অবস্থিত।

বিভাগ জেলা উপজেলা ইউনিয়ন 
খুলনা কুষ্টিয়া কুষ্টিয়া সদর কুমারখালি

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী সম্পর্কে কতটুকু জানেন?

কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার একটি গ্রাম শিলাইদহ। পদ্মা নদীর কোল ঘেঁষে গ্রামটির পূর্ব নাম খোরশেদপুর। রবীন্দ্রনাথের দাদা প্রিন্স দ্বারকানাথ ঠাকুর ১৮০৭ সালে এ অঞ্চলের জমিদারি পান। পরবর্তিতে ১৮৮৯ সালে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এখানে জমিদার হয়ে আসেন। এখানে তিনি ১৯০১ সাল পর্যন্ত জমিদারী পরিচালনা করেন। এ সময় এখানে বসেই তিনি রচনা করেন তার বিখ্যাত গ্রন্থ সোনার তরী, চিত্রা, চৈতালী, গীতাঞ্জলি ইত্যাদি। এখানে রবীন্দ্রনাথের সাথে দেখা করতে এসেছেন জগদীশ চন্দ্র বসু, দ্বিজেন্দ্রলাল রায়, প্রমথ চৌধুরীসহ আরো অনেকে।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ীর কাঠামো কেমন?

  • সুন্দর ও মনোরম পরিবেশ ।
  • যাদুঘর রয়েছে । জাদুঘরের গেটের পাশেই রয়েছে টিকেট কাউন্টার। জনপ্রতি টিকেট-এর দাম পনের টাকা করে। সার্কভুক্ত বিদেশি দর্শনার্থীর জন্যে টিকেট মূল্য ৫০ টাকা এবং অন্যান্য বিদেশী দর্শকদের জন্য টিকেটের মূল্য ১০০ টাকা করে।
  • জমিদারিত্তের ছাপ পাওয়া যাবে ।
  • রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বাড়ী রয়েছে । ইত্যাদি ।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী কেন যাবেন?

ভ্রমন পিপাসু মানুষ দের কে যদি এই কথা জিজ্ঞাসা করা হয়, তবে তারা এই কথা অহেতু হাসির ছলে উড়িয়ে দিবে । কারন, ভ্রমন পিপাসু মানুষদের কাছে এই কথা মূল্যহীন । তবুও বলি,

  • রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী তে সুন্দর ও মনোরম পরিবেশ
  • রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী তে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে পারবেন ।
  • বীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী তে যাদুঘর রয়েছে । ইত্যাদি ।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী ভ্রমন করলে আপনি হতাশ হবেন না । এটি আমরা হরফ করে আপনাদের জানান দিয়ে দিতে পারি ।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী কিভাবে যাবেন ?

যে কোন স্থান হতে বাস যোগে, ট্রেন যোগে কুষ্টিয়া যেতে পারেন। তারপর কুষ্টিয়া হতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ীতে যাওয়ার উপায় নিচে উল্লেখ করা হলোঃ

কুষ্টিয়া বাস টার্মিনাল থেকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী

কুষ্টিয়া শহর হতে অটো রিক্সা, সিএনজি ও ইজি বাইক ও অন্যান্য বাহন যোগে সহজেই এবং খুবই কম খরচে শিলাইদহ কুটি বাড়ি যাওয়া যায়। ম্যাপে দেখুন,

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী ভ্রমন শেষে থাকবেন কোথায়?

দেশের নানা প্রান্ত থেকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী ভ্রমনে ভ্রমনযাত্রী আসতে পারে, যাদের একদিনের মধ্যে ভ্রমন করে আবার বাড়ি ফিরে যাওয়া সম্ভবপর হয়ে ওঠেনা । তাই আপনার ভ্রমনে চিন্তা কোনো প্রকার না আসে সে জন্য ক্ষুদ্র প্রয়াসে আশে পাশের কিছু হোটের নাম তুলে ধরছি । যেখানে, আপনি সেফলি থাকতে পারবেন ।

ম্যাপে কুষ্টিয়া থানার আশে পাশের কিছু হোটের নাম ও তাদের খরচ সম্পর্কে দেওয়া হলো,

 

মন্তব্য

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ী নিয়ে আমাদের প্রতিবেদনটি আশা করি আপনাদের ভালও লেগেছে । আমাদের প্রতিবেদনটি আপনাদের কেমন লাগলো তা আমাদের কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না । পরিশেষে, ধন্যবাদ আমাদের প্রতিবেদনটি পড়ার জন্য ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: