,


বিয়েতে সুস্মিতা সেনের সম্মতি?
বিয়েতে সুস্মিতা সেনের সম্মতি?

বিয়েতে সুস্মিতা সেনের সম্মতি?

ডেস্ক রিপোর্টারঃ এ বছর ফেব্রুয়ারি মাসে বলিউড তারকা সুস্মিতা সেন বলেছেন, বিয়ে নয়, এখনো প্রেম করে বেড়াচ্ছেন। প্রেমের মধ্যেই তিনি খুঁজে পেয়েছেন আনন্দ। এর আগে জানুয়ারি মাসে ডিএনএ জানিয়েছে, সুস্মিতা সেনকে বিয়ের ব্যাপারে প্রস্তাব দিয়েছেন রোহমান শল। সুস্মিতা সেন তা গ্রহণ করেছেন। তাঁরা বিয়ের আলোচনাও সেরে ফেলেছেন। তখন সুস্মিতা সেন ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘বিয়ে নয়, রোমান্স করছি। সবাই ভাবছে আমি বিয়ে করছি। আপনারা জেনে রাখুন, আমি এখন শরীরচর্চা নিয়ে ব্যস্ত। যা শুনছেন, তা গুজব।’

তবে এবার জানা গেছে, তিনি বিয়ে করতে যাচ্ছেন। প্রেমিক রোহমান শলকে বিয়ের ব্যাপারে সম্মতি জানিয়েছেন ১৯৯৪ সালের ‘মিস ইউনিভার্স’ সুস্মিতা সেন। ‘ভোগ’ ম্যাগাজিনের ভারতীয় সংস্করণ জানিয়েছে, এ বছর নভেম্বর বা ডিসেম্বরে বিয়ে করবেন সুস্মিতা সেন ও রোহমান শল। তবে বিয়ে নিয়ে সুস্মিতা সেন বা রোহমান শলের কাছ থেকে কোনো বিবৃতি পাওয়া যায়নি।

রোহমান শলের সঙ্গে পরিচয় কীভাবে হয়েছিল? ‘ভোগ’ ম্যাগাজিনকে সুস্মিতা সেন জানিয়েছেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অচেনা ব্যক্তিদের পাঠানো মেসেজ পড়ার ব্যাপারে তাঁর তেমন আগ্রহ নেই। তাই অসংখ্য মেসেজ জমা হয়ে থাকে। একদিন অবসর সময়ে সেই মেসেজগুলো খুলে দেখেন। নিজের অজান্তেই তিনি রোহমান শোলের পাঠানো মেসেজ পড়েছেন। সেই থেকে শুরু। এরপর একসময় তা প্রেমে পরিণত হয়। ২৭ বছর বয়সের র‌্যাম্প মডেল কাশ্মীরের ছেলে রোহমান শলের সঙ্গে ৪৩ বছরের সুস্মিতা সেনের প্রেম এরই মধ্যে বেশ জমে গেছে।

মাত্র ২৫ বছর বয়সে বিয়ে না করে ২০০০ সালে কন্যাসন্তান রেনিকে দত্তক নিয়ে সবাইকে চমকে দেন সুস্মিতা সেন। পরে ২০১০ সালে তিনি আলিশাকে দত্তক নেন। তাঁর প্রেমিকের সংখ্যা কম নয়। তিনি যাঁদের সঙ্গে প্রেম করেছেন, তাঁদের মধ্যে আছেন ঋতিক ভাসিন, বিক্রম ভাট, রণদীপ হুদা, ওয়াসিম আকরাম, মুদাসসর আজিজ, ইমতিয়াজ খত্রী, মানব মেনন, সঞ্জয় নারঙ্গ, সাবির ভাটিয়া। সর্বশেষ বান্টি সচদেবের সঙ্গে সুস্মিতার প্রেমের অভিজ্ঞতা ছিল একবারেই খারাপ। বান্টি একদিকে সুস্মিতা সেন, অন্যদিকে দিয়া মির্জা আর নেহা ধুপিয়ার সঙ্গে প্রেম করতেন। এ কারণেই বান্টির সঙ্গে সুস্মিতার সম্পর্ক ভেঙে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: