,


পাকিস্তানকে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশ

পাকিস্তানকে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশ

স্পোর্টস ডেস্কঃ পাকিস্তানকে হারিয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠল বাংলাদেশ। মহাদেশীয় শ্রেষ্ঠত্বের এই টুর্নামেন্টে গত (এবারসহ) চার টুর্নামেন্টের মধ্যে তৃতীয়বারের মতো ফাইনালে উঠল বাংলাদেশ। কাল ফাইনালে প্রতিপক্ষ ।

আবারও এশিয়া কাপের ফাইনাল, প্রতিপক্ষ আবারও সেই ভারত। তাহলে আবারও কি স্বপ্নভঙ্গের জ্বালা? কে জানে, ক্রিকেট তো গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা। শেষ বলের আগে কিছুই বলা যায় না!

পাকিস্তানকে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশ

তামিম ইকবাল না থাকায় এমনিতেই টালমাটাল দল। ম্যাচের আগে সাকিব আল হাসানকে হারানো ধাক্কা। বাকিদের অনেকেরই চোট। সঙ্গে অসহনীয় কন্ডিশন। এভাবে পারা যায়? দেখিয়ে দিল বাংলাদেশ। পাঁজরে ব্যথা সয়ে, বুকে টেপ পেঁচিয়ে, ক্র্যাম্প নিয়ে মুশফিকুর রহিম খেললেন আরেকটি অসাধারণ ইনিংস। অতিমানবীয় ক্যাচ নিয়ে আর অনুপ্রেরণাদায়ী নেতৃত্বে দলকে তাতিয়ে দিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। মুস্তাফিজের বলের আগুন, মিঠুনের ব্যাটের ঝাঁজ, বাকিদের উজার করে দেওয়া পারফরম্যান্স। সব প্রতিকূলতা পেরিয়ে, বাধার একেকটি দেয়াল গুঁড়িয়ে বাংলাদেশ উঠল ফাইনালে।

এশিয়া কাপ সুপার ফোরের শেষ ম্যাচটি রূপ নিয়েছিল সেমি-ফাইনালে। বুধবার আবু ধাবির সেই লড়াইয়ে পাকিস্তানকে ৩৭ রানে হারিয়ে বাংলাদেশ পা রাখল ফাইনালের মঞ্চে। শুক্রবার দুবাইয়ের ফাইনালে আগে থেকেই অপেক্ষায় ভারত।

এবার নিয়ে গত চার এশিয়া কাপের তিনটিতেই ফাইনালে উঠল বাংলাদেশ। তবে গত তিনটি আসর ছিল দেশের মাটিতে। এবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের কঠিন কন্ডিশন ও চোট-আঘাতের অসংখ্য ছোবল সামলে ফাইনাল।

আইসিসি টপ অর্ডারের ধ্বংসস্তুপ থেকে বাংলাদেশকে আবারও টেনে তোলেন মুশফিক। বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৯৯ রানে আউট হওয়ার হতাশায় পুড়েছেন। তবে মোহাম্মদ মিঠুনের সঙ্গে তার জুটির সৌজন্যেই বাংলাদেশ যেতে পারে ২৩৯ পর্যন্ত।

রানটা লড়াই করার মতো হলেও ছিল না জয়ের মতো। মুস্তাফিজ-মিরাজদের দুর্দান্ত বোলিং সেটিকেই বানিয়ে ছাড়ল যথেষ্ট। পাকিস্তান থমকে গেছে ২০২ রানে।

দুর্দান্ত এই জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছে লড়াকু এক জুটি। চতুর্থ উইকেটে ১৪৪ রান তুলেছেন মুশফিক ও মিঠুন। পাকিস্তানের বিপক্ষে এই উইকেটে এটি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ।

প্রথম ম্যাচেও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৩১ রানের জুটি গড়েছিলেন এই দুজন। দুজনের জুটি বাঁধার গল্পটা এবারও একই। টপ অর্ডারের ব্যর্থতা। নাজমুল হোসেন শান্তর জায়গায় ফিরলেন সৌম্য সরকার, সাকিবের জায়গায় তিনে মুমিনুল হক। কিন্তু বদলাল না হতাশার চিত্র।

হুট করেই পাওয়া সুযোগটা বড্ড হেলায় হারিয়েছেন সৌম্য সরকার। বাজে এক পুল শটে শূন্য রানেই ফিরেছেন টুর্নামেন্টে প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা জুনাইদ খানেক উইকেট উপহার দিয়ে।

তিন নম্বরে নিজেকে প্রমাণের সুবর্ণ একটি সুযোগ হারিয়েছেন মুমিনুল। বাঁহাতি পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদিকে দৃষ্টিনন্দন ফ্লিকে চার মারার পরের বলেই বোল্ড ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে। পরের ওভারে জুনাইদের বলে লাইন মিস করে বোল্ড লিটন দাস। পঞ্চম ওভারে ১২ রানেই নেই ৩ উইকেট।

পাকিস্তানকে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশই অবস্থায় যে কোনো দলেরই ধুঁকতে থাকার কথা। কিন্তু এশিয়া কাপে এটি বাংলাদেশের নিয়মিত চিত্র বলেই হয়তো খুব একটা বিচলিত মনে হয়নি মুশফিককে। ২২ গজে গিয়ে আবার শুরু করেছেন উদ্ধার পর্ব। সঙ্গী পেয়েছেন মিঠুনকে।

পেসারদের সাবধানে খেলে দুজন আটকেছেন বিপর্যয়। পরে স্পিনারদের দারুণ খেলে বাড়িয়েছেন রান। দুজনের ব্যাটিং দাপটে এক সময় পাকিস্তানকে মনে হচ্ছিল মাঠে অসহায়। দুজনের জুটি এগিয়ে যায় দেড়শর পথে। ৬৬ বলে ফিফটি করেন মিঠুন, ৬৮ বলে মুশফিক।

পাঁজরের চোট তো ছিলই। ফিফটির পর থেকে ক্র্যাম্পও হচ্ছিল মুশফিকের পায়ের পেশিতে। তবু এগিয়ে নিয়েছেন দলকে।

কিন্তু পাকিস্তানকে ম্যাচে ফেরার পথ করে দেয় আবার এই জুটিই। প্রথম ম্যাচে ৬৩ করে যেভাবে আড়াআড়ি খেলে লাসিথ মালিঙ্গাকে উইকেট উপহার দিয়েছিলেন মিঠুন, সেটিরই যেন রিপ্লে দেখিয়ে ৬০ রানে উইকেট দিয়ে এলেন হাসান আলিকে।

জুটি ভাঙলেও বাংলাদেশ তখন পেয়ে গেছে শক্ত ভিত। সেটি নড়বড়ে হয়ে যায় ইমরুল কায়েসের বিদায়ে। যে শাদাব খানের কথা ভেবে ছয়ে নামানো হয়েছে তাকে, সেই শাদাবের লেগ স্পিনেই ৯ রানে এলবিডব্লিউ ইমরুল।

আড়াইশ ছাড়ানোর আশা তখনও ছিল। মুশফিক সেঞ্চুরির পথে, মাহমুদউল্লাহ গিয়েই দারুণ খেলছিলেন। মুশফিকের বিদায় দিয়ে আবার পথ হারানোর শুরু। শাহিন শাহ আফ্রিদির অফ স্টাম্পের বাইরের বলে ড্রাইভ করতে গিয়ে ৯৯ রানে কটবিহাইন্ড মুশফিক। পাকিস্তানিদের উল্লাসই বলে দিচ্ছিল, উইকেটটি কতটা জরুরি ছিল তাদের।

মিরাজ পারেননি সময়ের দাবি মেটাতে। বড় ধাক্কা হয়ে আসে শেষ দিকে রান তোলার জন্য যার দিকে তাকিয়ে থাকে দল সেই মাহমুদউল্লাহর বিদায়। ২৫ রানে বোল্ড জুনাইদকে আড়াআড়ি খেলে। মাশরাফি একটি ছক্কা মারলেও পারেননি শেষ করে আসতে। বাংলাদেশ অলআউট তাই শেষ ওভারের আগেই।

মোহাম্মদ আমিরের বাজে ফর্মে সুযোগ পাওয়া জুনাইদ ২০ রানে নিয়েছেন ৪ উইকেট। নতুন বলে তার সঙ্গী আফ্রিদির উইকেট দুটি।

তবে শেষের হতাশাটুকু ঝেড়ে ফেলে বাংলাদেশ বোলিংয়ের নামে উজ্জীবিত হয়ে। শুরুতেই কাঁপিয়ে দেয় পাকিস্তানকে। বিপজ্জনক ফখর জামানের ডানা ছেটে দেন মেহেদী হাসান মিরাজ। নতুন বল পেয়ে মুস্তাফিজ নিজের প্রথম দুই ওভারে ফেরান বাবর আজম ও সরফরাজ আহমেদকে। পাকিস্তানের ৩ উইকেট নেই ১৮ রানে।

ইমামকে এসব স্পর্শ করেনি। আর শোয়েব মালিকের তো বরাবরই এইসব পরিস্থিতি পছন্দ। এই দুজন মিলে আস্তে আস্তে কাটাতে থাকেন বিপর্যয়ের রেশ।

৬৭ রানের এই জুটি ভাঙে মাশরাফির জাদুকরী ক্যাচে। রুবেলের বলে মালিকের ফ্লিকে উড়ে এলো বল। শর্ট মিড উইকেটে উড়াল দিলেন অধিনায়ক। বাতাসে ভেসে অবিশ্বাস্য ক্ষিপ্রতায় তালুবন্দী করলেন বল!

ডাইভিং ক্যাচ নিয়ে উঠে দাঁড়িয়ে এক হাতে বল উঁচিয়ে দাঁড়িয়ে রইলেন মাশরাফি। স্তম্ভিত ব্যাটসম্যান মালিকও দাঁড়িয়ে ঠায়!

সাকিবের বদলে মুমিনুলকে নেওয়ায় একাদশে একজন বোলার কম ছিল। পঞ্চম বোলারের কাজটা সেই সময় দারুণভাবে চালিয়ে নেন মাহমুদউল্লাহ ও সৌম্য সরকার। শুধু রানের গতিতেই বাধ দেননি দুজন, সৌম্য এনে দেন উইকেটও। তার মিডিয়াম পেসের বাউন্সারে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন শাদাব খান।

পাকিস্তানের রান তখন ৫ উইকেটে ৯৪। ম্যাচ বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রণে। কিন্তু হাল ছাড়ার পাত্র নন ইমাম। এমনিতে আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের জন্য পরিচিতি আসিফ আলি ঠাণ্ডা মাথায় দারুণ সঙ্গ দেন। এই দুজন আবার ম্যাচে ফিরিয়ে আনে পাকিস্তানকে। বাংলাদেশের জন্য বড় হতে থাকে শঙ্কার ছায়া।

জুটি ভাঙতে মুস্তাফিজকে দ্বিতীয় স্পেলে ফেরান মাশরাফি। প্রথম বলেই আউট হতে পারতেন আসিফ। কিন্তু দুহাতে নেওয়ার মতো সহজ ক্যাচটি এক হাতে নিতে গিয়ে ফেলে দেন মাঠের বাইরে যাওয়া মুশফিকের জায়গায় উইকেটের পেছনে দাড়ানো লিটন।

মনে হচ্ছিল সেটির খেসারত দিতে হবে দলকে। কিন্তু প্রায়শ্চিত্তের সুযোগ হাতছাড়া করেননি লিটন। মিরাজের বলে দারুণ স্টাম্পিংয়ের শিকার ৩১ রান করা আসিফ। ভাঙে ৭১ রানের জুটি।

বাধা তখন কেবল ইমাম। মাশরাফি আচমকা বোলিংয়ে আনেন মাহমুদউল্লাহকে। কাজ হয়ে যায় জাদুমন্ত্রের মতো। জোরের ওপর করা বুদ্ধিদীপ্ত ডেলিভারিতে ৮২ রান করা ইমামের বিদায়। আরেকটি দারুণ স্টাম্পিংয়ে প্রায়শ্চিত্তের আরেক ধাপ পূরণ করেন লিটন।

পাকিস্তানকে হারিয়ে তৃতীয়বারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে বাংলাদেশএরপর কেবল শেষের অপেক্ষা। শেষ দিকে আরও দুই শিকারে মুস্তাফিজ নিয়েছেন ৪ উইকেট। পাকিস্তানের শেষ জুটি অবশ্য টিকে গেল প্রায় ৫ ওভার। তাতে মুস্তাফিজের ৫ উইকেট হলো না। পাকিস্তানও অলআউট হলো না।

তাতে খুব বেশি যায়-আসেনি। দেরিটুকুও তখন যেন ছিল আনন্দময়। এমন একটি জয়, এভাবে ফাইনালে ওঠার পথে প্রতিটি পদক্ষেপ, প্রতিটি মূহুর্তই যেন উৎসবমুখর উদযাপন!

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ৪৮.৫ ওভারে ২৩৯ (লিটন ৬, শান্ত ০, মুমিনুল ৫, মুশফিক ৯৯, মিঠুন ৬০ ইমরুল ৯, মাহমুদউল্লাহ ২৫, মিরাজ ১২, মাশরাফি ১৩, রুবেল ১, মুস্তাফিজ ১*; জুনাইদ ৪/১৯, আফ্রিদি ২/৪৭, হাসান ২/৬০, নওয়াজ ০/৩৯, মালিক ০/১৪, শাদাব ১/৫২)।

পাকিস্তান: ৫০ ওভারে ২০২ (ফখর ১, ইমাম ৮৩, বাবর ১, সরফরাজ ১০, মালিক ৩০, শাদাব ৪, আসিফ ৩১, নওয়াজ ৮, হাসান ৮, ; মিরাজ ২/২৮, মুস্তাফিজ ৪/৪৩, মাশরাফি ০/৩৩, রুবেল ১/৩৮, মাহমুদউল্লাহ ১/৩৮, সৌম্য ১/১৯)।

ফল: বাংলাদেশ ৩৭ রানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: মুশফিকুর রহিম

এবার কি তাহলে সেই হারের জ্বালা মেটানোর পালা? এশিয়া কাপে এবারসহ চার টুর্নামেন্ট মিলিয়ে তিনবার ফাইনালে উঠল বাংলাদেশ। ২০১২ সালে প্রথমবারের মতো দেখা মিলেছিল ফাইনালের। সেই হারের স্মৃতি ভোলা সম্ভব? শ্বাসরুদ্ধকর সেই ম্যাচে পাকিস্তানের ৯ উইকেটে ২৩৬ রান তাড়া করতে নেমে ২ রানে হেরেছিল বাংলাদেশ। মুশফিক-সাকিবের সেই কান্না এখনো পোড়ায় বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের। গত টুর্নামেন্টে সুযোগ পেয়েও মোছা যায়নি সেই কান্না। এবার? প্রতিপক্ষ তো সেই ভারত—মুশফিকদের মধ্যে আলাদা একটা তাড়না থাকাই স্বাভাবিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: