,


খবর কী মামলার ?

খবর কী মামলার ?

বিনোদন ডেস্কঃ তিনি একাধারে মার্কিন অভিনেতা, পরিচালক, প্রযোজক, চিত্রনাট্যকার ও গায়ক। সেরা পার্শ্ব অভিনেতা ও সেরা অভিনেতা বিভাগে জিতেছেন দুটি অস্কার। ‘দ্য ইউজুয়াল সাসপেক্টস’ (১৯৯৫), ‘আমেরিকান বিউটি’ (১৯৯৯) যাঁরা দেখেছেন, তাঁরা জানেন কত বড় মাপের অভিনেতা তিনি। তিনি কেভিন স্পেসি।

কিন্তু বড় মাপের অভিনেতা হলেই যে তিনি চরিত্রবান হবেন, এমন তো কোথাও লেখা নেই। গুণী মানুষমাত্রই ভালো মানুষ—এমন কোনো সূত্রও নেই। তবে কেভিন স্পেসি যে চরিত্রহীন, সে কথা বলা যাচ্ছে না। আদালত এমন কোনো ঘোষণা দেননি। বরং কিছুদিন আগে যিনি এই তারকা অভিনেতার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির মামলা করেছিলেন, তিনি হঠাৎ গতকাল শুক্রবার সেই মামলা তুলে নিয়েছেন। মামলা কেন করেছিলেন, সেটি জানা গেলেও মামলা কেন তুলে নিলেন, তা জানা যায়নি।

পেজ সিক্সের প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, এই ব্যক্তি কেভিন স্পেসির বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনা প্রথম ব্যক্তি নন। ২০১৭ সালে আরেক মার্কিন অভিনেতা অ্যান্টনি রেপ প্রথম কেভিন স্পেসির বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনেন। সেটা নাকি ১৯৮৬ সালের ঘটনা। তখন র‍্যাপের বয়স ছিল মাত্র ১৪ আর স্পেসি ২৬ বছরের তরুণ। এরপর ১৫ জন কেভিন স্পেসির বিরুদ্ধে নিজেদের যৌন হয়রানির অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেন। এর মধ্যে কেউ কেউ নাম–পরিচয় গোপন রাখার শর্তে বলেছেন, কেভিন স্পেসির কুকীর্তি।

এই ১৫ জনের ভেতর ৮ জনই ছিলেন ‘হাউস অব কার্ডস’ টিভি শোর সেটের কর্মী ও শিল্পী। কিন্তু এই ১৬টি অভিযোগের কোনোটি আদলতে প্রমাণিত হয়নি। যদিও কেভিন স্পেসি ২০১৭ সালেই অ্যান্টনি রেপের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। এমনকি এসব অভিযোগের ভিত্তিতে নেটফ্লিক্স কেভিন স্পেসিকে নিষিদ্ধও করেছে।

তবে যাঁরা কেভিন স্পেসির বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন, তাঁরা বিভিন্ন বয়সের আর বিভিন্ন পেশার হলেও তাঁদের মধ্যে একটা মিল আছে। তাঁরা প্রত্যেকেই পুরুষ। এ পর্যন্ত ৫৯ বছর বয়সী কেভিনের সঙ্গে নারীকে জড়িয়ে কোনো কথা ওঠেনি।

এরপর আবার আরেক ব্যক্তির কাছ থেকে নতুন করে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি নাকি ২০১৬ সালের। তখন অভিযোগকারীর বয়স ছিল ১৮। এক নাইট ক্লাবে কেভিন নাকি তাঁকে জোর করে মদ খাইয়ে তাঁর শরীরের স্পর্শকাতর অঙ্গ স্পর্শ করেন। কিন্তু হঠাৎ খবরটা সামনে এসেছে। ওই তরুণ নাকি গতকাল শুক্রবার ম্যাসাচুসেটস সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে সেই হলিউড অভিনেতার বিরুদ্ধে আনা সেই মামলা তুলে নিয়েছেন।

যাহোক, দুই বছর আগেও কেভিন স্পেসি যে মাথা নাড়ানো শুরু করেছেন, এবারও তাই-ই করেছেন। দুই পাশে মাথা নাড়িয়ে সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। এসবই নাকি তাঁকে ফাঁসানোর ষড়যন্ত্র!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: