,


কে এই মিজানুর রহমান?

কে এই মিজানুর রহমান?

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের গোয়ালহুদা গ্রামের সুজা বিশ্বাসের ঘরজামাই মিজানুর রহমান সোহেল প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের নাম ভাঙ্গিয়ে অত্র অঞ্চলে প্রভাব খাটিয়ে প্রতারণা করে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে চাকরি দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে আইন-শৃঙ্খলা সভায় আলোচনার ঝড় উঠেছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শ্বাশতী শীলের সভাপতিত্বে আইন-শৃঙ্খলা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম সিরাজ ঘরজামাই সোহেলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ করে বলেন, প্রতারণার শিকার লোকজন তার কাছে টাকা চাইতে গেলে তাদেরকে নানাভাবে হুমকি ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছে।

এ বিষয়ে বক্তব্য রাখেন, পান্তাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ইসমাইল হোসেন, স্বরুপপুর ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, মান্দারবাড়ীয়া ইউপি চেয়ারম্যান শফিদুল ইসলাম প্রমুখ।বক্তারা এ বিষয়ে উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা সভায় রেজুলেশন গ্রহন করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সভাপতি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সুনামগঞ্জ জেলার টেকেরহাট তাহেরপুর উপজেলার লটিমা গ্রামের নজরুল ইসলাম ভুইয়ার ছেলে মিজানুর রহমান সোহেল। তার বাবা একজন দীন-মজুর কৃষক। ওই গ্রামে তার স্ত্রী ও কন্যা সন্তান রয়েছে। সে ওই এলাকা থেকে এসে মহেশপুর উপজেলার গোয়ালহুদা গ্রামের সুজা উদ্দিনের মেয়েকে বিয়ে করে ঘরজামাই হিসেবে থাকে।

গোয়ালহুদা গ্রামের মোফাজ্জল মাস্টারের মাধ্যমে পরিচিত হয়ে একটি প্রতারণা সিন্ডিকেট গড়ে তোলে। সে কখনও আইজির লোক, কখনও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর লোক আবার কখনও কখনও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জনৈক মানু মজুমদারের নাম ভাঙ্গিয়ে এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তার বিরুদ্ধে মেহেরপুর, নারায়নগঞ্জ আদালতে একাধিক মামলা রয়েছে।

তার ভাইরা মোফাজ্জল মাস্টার জানিয়েছে, পাওনা টাকা চাইতে গেলে তার বিরুদ্ধে জাল-জালিয়াতি ষ্ট্যাম্প তৈরি করে ষড়যন্ত্র মূলক মামলা করেছে। তিনি তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: