,


অমিতাভের শেয়ার করা ছবিতে বিব্রত মেয়ে
অমিতাভের শেয়ার করা ছবিতে বিব্রত মেয়ে

অমিতাভের শেয়ার করা ছবিতে বিব্রত মেয়ে

ডেস্ক রিপোর্টারঃ সময় যেন রকেটের চেয়েও দ্রুত ছোটে। তাকে থামাবে, সেই সাধ্য কারো নেই। নেই বলিউডের শাহেনশাহ অমিতাভ বচ্চনেরও। তাই তো তাঁর আর কন্যা শ্বেতা বচ্চনের ছোট্টবেলার একটা ছবি শেয়ার করে ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘একদিন ও এরকম ছোট্ট ছিলো। আর কীভাবে যে এত বড় হয়ে গেলো টেরই পেলাম না।’ সময় বহমান নদীর স্রোতের চেয়েও দ্রুত চলে গেছে। বড় হয়েছেন শ্বেতা, বুড়ো হয়েছেন অমিতাভ। কিন্তু সে তো শুধু ক্যালেন্ডারের হিসাব।

সত্যি এটাই যে, বাবার কাছে সন্তান কখনো বড় হয় না। আর সন্তানের কাছেও বাবা একই রকমভাবে বাবাই থেকে যায়। অমিতাভ বচ্চন কেবল ছোটবেলার শ্বেতা বচ্চন আর বড় হবার পরের শ্বেতা বচ্চনকে দেখে হিসাব মেলাতে পারছেন না। আত্মসমর্পন করেছেন সময়ের কাছে। যে সময় কারো কথা শোনে না, থেমে থাকে না কারও জন্য।

এতটুকু অবসর পেয়ে তাই পুরোনো স্মৃতি রোমন্থন করতে বসে হিসাব কি একটু গোলমেলে হয়ে গেলো ৭৬ বছর বয়সী এই অভিনেতার? স্মৃতির হাওয়া টাইম মেশিন হয়ে এসে উড়িয়ে নিয়ে গেলো সেখানে, যেখানে শ্বেতা বচ্চন ছিলেন একেবারে শিশু। আর বাবা অমিতাভ বচ্চন তখন আর দশটা সাধারণ বাবার মতোই গোসল করাচ্ছিলেন তার সন্তানকে। ইনস্টাগ্রামে এই ছবি দেখে শ্বেতা বচ্চনের গাল লাল হয়েছে। নিজের ছোট্টবেলার ছবি নাকি এই লেখক, সাংবাদিক, উপস্থাপক, মডেল এবং দুই সন্তানের মাকে লজ্জায় ফেলে দিয়েছে। বাবার পোস্টে তিনি মন্তব্য করেছেন, ‘খুবই বিব্রতকর’।

১৯৯৭ সালে শ্বেতার বিয়ে হয় ভারতের শিল্পপতি নিখিল নন্দার সঙ্গে। নিখিল বলিউডের প্রয়াত অভিনেতা রাজ কাপুরের নাতি। শ্বেতা ও নিখিলের সংসারেও দুই সন্তান নব্য নাভেলি ও অগস্ত্যা।

অমিতাভ বচ্চন সময় পেলেই ঘুরে আসেন অতীতে, প্রায়ই পুরোনো স্মৃতি রোমন্থন করেন। শ্বেতা বচ্চন আর অভিষেক বচ্চনের ছোটবেলার ছবি শেয়ার করে জানান সন্তানের প্রতি এক সাধারণ বাবার অকৃত্রিম ভালোবাসা।

গতবছরও তিনি শ্বেতার ছোটবেলার আর বড়বেলার দুটো ছবি কোলাজ করে প্রকাশ করেন। দুটোতেই শ্বেতার হাত ধরে রেখেছিলেন বাবা অমিতাভ। ছবিটি শেয়ার করে লিখেছিলেন, ‘আমি তার (শ্বেতার) হাত ধরে রেখেছিলাম, ধরে আছি আর সারা জীবন এভাবেই তার হাত ধরে রাখব…শ্বেতা আমার প্রথম সন্তান।’

অমিতাভ বচ্চন বর্তমানে সুজিত সরকারের পরিচালনায় ‘গুলাবো সিতাবো’ ছবির শুটিংয়ে ব্যস্ত আছেন। এক সপ্তাহ আগে তিনি টুইটারে এই ছবিতে তাঁর ‘ফার্স্ট লুক’ প্রকাশ করেছেন। ছবিতে দেখা যায়, চোখে গোল ফ্রেমের চশমা, মুখ ভর্তি দাঁড়ি, গাঁয়ে ঢিলাঢালা পোশাক এবং মাথায় পেঁচানো কাপড়ে কৌতুহলী অমিতাভ বচ্চন। শুটিংয়ের প্রথম দিন এই ছবিটি সম্পর্কে লিখেছিলেন, ‘একটি সিনেমা শেষ আর আরেকটি শুরু। আবারও একটা নতুন ভ্রমণ, নতুন জায়গা, নতুন শহর, নতুন ক্রু, নতুন গল্প এবং নতুন সহকর্মী। লক্ষ্ণৌতে আজ থেকে শুরু ‘গুলাবো সিতাবো’।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: